২৬ আগস্ট, ২০১৭

একনজরে জামায়াতে ইসলামী


এই উপমহাদেশে জামায়াতে ইসলামী একটি গুরুত্বপূর্ণ নাম। এটি অনেকের কাছে যেমন ভালবাসার আবার অনেকের কাছে সমালোচনারও। জামায়াতে ইসলামী শুধুই একটি রাজনৈতিক দল নয়। এটি কেবল সামাজিক প্রতিষ্ঠানও নয়। এটি একটি পূর্ণাংগ ইসলামী আন্দোলন। ব্যক্তি, সমাজ ও রাষ্ট্রকে আল্লাহর বিধানের আলোকে গড়ে তোলার জন্য চার দফা কর্মসূচীর ভিত্তিতে কাজ করছে জামায়াতে ইসলামী।

জামায়াতে ইসলামী গঠন

১৯৪১ সনের ২৬ আগস্ট বৃটিশ শাসিত দক্ষিণ এশিয়া উপমহাদেশের লাহোর সিটিতে গঠিত হয় জামায়াতে ইসলামী। প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ছিলেন ৭৫ জন। সাইয়েদ আবুল আ‘লা মওদূদী আমীরে জামায়াত নির্বাচিত হন।

প্রতিষ্ঠাতা সদস্যদের উদ্দেশ্যে প্রদত্ত ভাষণের একাংশে সাইয়েদ আবুল আ‘লা মওদূদী বলেন, ‘জামায়াতে ইসলামীতে যাঁরা যোগদান করবেন তাঁদেরকে এই কথা ভালোভাবে বুঝে নিতে হবে যে, জামায়াতে ইসলামীর সামনে যেই কাজ রয়েছে তা কোন সাধারণ কাজ নয়। দুনিয়ার গোটা ব্যবস্থা তাঁদেরকে পাল্টে দিতে হবে। দুনিয়ার নীতিনৈতিকতা, রাজনীতি, অর্থনীতি, সমাজনীতি, সভ্যতা-সংস্কৃতি সবকিছু পরিবর্তন করে দিতে হবে। দুনিয়ায় আল্লাহদ্রোহিতার ওপর যেই ব্যবস্থা কায়েম রয়েছে তা পরিবর্তন করে আল্লাহর আনুগত্যের ওপর প্রতিষ্ঠিত করতে হবে।’

জামায়াতে ইসলামী পাকিস্তান ও জামায়াতে ইসলামী হিন্দ

১৯৪৭ সনের ১৪ ও ১৫ই আগস্টের মধ্যবর্তী রাতে দিল্লীতে বসে উপমহাদেশের সর্বশেষ ভাইসরয় লর্ড লুই মাউন্টব্যাটেন পাকিস্তান ও ভারতের স্বাধীনতার ঘোষণা দেন। তখন গোটা উপমহাদেশে জামায়াতে ইসলামীর সদস্য সংখ্যা ছিলো ৬২৫ জন। দেশ ভাগ হলে জামায়াতে ইসলামীও ভাগ হয়। মোট ২৪০ জন সদস্য নিয়ে জামায়াতে ইসলামী হিন্দ এবং ৩৮৫ জন সদস্য নিয়ে জামায়াতে ইসলামী পাকিস্তান কাজ শুরু করে।

ইসলামী শাসনতন্ত্র আন্দোলনের সূচনা

পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার আন্দোলনের সময় মুসলিম লীগের নেতৃবৃন্দ এই কথা বলে প্রচার চালিয়েছেন একটি স্বাধীন দেশ হাতে পেলে তাঁরা দেশটিকে একটি ইসলামী রাষ্ট্রে পরিণত করবেন। এতে সাধারণ মুসলিম তাদের পক্ষে জনমত গড়ে তুলেন। পাকিস্তান প্রতিষ্ঠা পাবার পর তারা সেইসব কথা ভুলে যেতে থাকেন। শাসনতন্ত্র প্রণয়ন করতে গিয়ে তারা আলোচনা শুরু করেন পাকিস্তানের জন্য বৃটিশ পার্লামেন্টারি সিস্টেম উপযোগী, না আমেরিকান প্রেসিডেনশিয়াল সিস্টেম, তা নিয়ে। এতে ক্ষিপ্ত হয় ইসলামপন্থী মানুষরা। 

১৯৪৮ সনের এপ্রিল মাসে করাচির জাহাংগীর পার্কে জামায়াতে ইসলামীর প্রথম রাজনৈতিক জনসভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান বক্তা ছিলেন জামায়াতে ইসলামীর প্রতিষ্ঠাতা সাইয়েদ আবুল আ‘লা মওদূদী। তিনি একটি গুরুত্বপূর্ণ দিক-নির্দেশনামূলক বক্তব্য পেশ করেন। বক্তব্যে তিনি পাকিস্তানের জন্য শাসনতন্ত্র প্রণয়নের দায়িত্বপ্রাপ্ত গণপরিষদের প্রতি চারটি দফার ভিত্তিতে ‘আদর্শ প্রস্তাব’ গ্রহণ করার উদাত্ত আহ্বান জানান।
দফাগুলো হচ্ছে
১। সার্বভৌমত্ব আল্লাহর। সরকার আল্লাহর প্রতিনিধি হিসেবে দেশ শাসন করবে।
২। ইসলামী শরীয়াহ হবে দেশের মৌলিক আইন।
৩। ইসলামের সাথে সাংঘর্ষিক আইনগুলো ক্রমান্বয়ে পরিবর্তিত করে ইসলামের সাথে সংগতিশীল করা হবে।
৪। ক্ষমতা প্রয়োগ করতে গিয়ে রাষ্ট্র কোন অবস্থাতেই শরীয়াহর সীমা লংঘন করবে না।
এইভাবে জামায়াতে ইসলামী ইসলামী শাসনতন্ত্র আন্দোলন শুরু করে। আরো জানতে ক্লিক করুন

কাদিয়ানীদেরকে অমুসলিম ঘোষণার আন্দোলন

১৯৫৩ সনের জানুয়ারি মাসে জামায়াতে ইসলামী, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম, মাজলিসে আহরার, জমিয়তে আহলে হাদীস, মুসলিম লীগ, আনজুমানে তাহাফ্ফুযে হুকুকে শিয়া প্রভৃতি দল করাচিতে একটি সম্মেলনে মিলিত হয়। জামায়াতে ইসলামী প্রস্তাব করে যে কাদিয়ানী ইস্যুটিকে ইসলামী শাসনতন্ত্র আন্দোলনের সাথে সম্পৃক্ত করে নেওয়া হোক। সেই সম্মেলনে এই বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া সম্ভব হলো না।
চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য ফেব্রুয়ারি মাসে করাচিতে সর্বদলীয় নির্বাহী পরিষদের মিটিং ডাকা হয়। এই মিটিংয়ে সরকারের ওপর চাপ সৃষ্টি করার লক্ষ্যে কাদিয়ানীদের বিরুদ্ধে ‘ডাইরেক্ট অ্যাকশনের’ পক্ষে প্রবল মত প্রকাশ পায়। জামায়াতে ইসলামী গোড়া থেকেই শান্তিপূর্ণ ও নিয়মতান্ত্রিক আন্দোলনে বিশ্বাসী ছিলো বিধায় ‘ডাইরেক্ট এ্যাকশনের’ সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করে সর্বদলীয় নির্বাহী পরিষদ থেকে বেরিয়ে আসে।

১৯৫৩ সনের মার্চ মাসে কাদিয়ানীদের বিরুদ্ধে কতিপয় দলের ডাইরেক্ট এ্যাকশনের ফলে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি ঘটে। এই অবনতি পাঞ্জাবেই ঘটেছিলো বেশি। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার জন্য মার্শাল ল’ ঘোষণা করা হয়। কয়েক ঘণ্টার মধ্যে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এসে যায়।

মাওলানা মওদুদীর গ্রেফতার ও ফাঁসির আদেশ

যদিও ডাইরেক্ট এ্যাকশনের বিপক্ষে ছিল জামায়াত তারপরও ১৯৫৩ সনের ২৮শে মার্চ মার্শাল ল’ কর্তৃপক্ষ সাইয়েদ আবুল আ‘লা মওদূদী ও আরো কয়েকজন শীর্ষ নেতাকে গ্রেফতার করে। আরো বিস্ময়ের ব্যাপার, সামরিক ট্রাইব্যুনাল ১৯৫৩ সনের ৮ই মে সাইয়েদ আবুল আ‘লা মওদুদীকে ফাঁসির হুকুম দেয়। জামায়াতে ইসলামীর জনশক্তি এবং সকল শ্রেণীর ইসলামী ব্যক্তিত্ব এই অন্যায়ের বিরুদ্ধে নিয়মতান্ত্রিক ও বলিষ্ঠ আন্দোলনে নেমে পড়ে। ফলে সরকার মৃত্যুদণ্ড রহিত করে সাইয়েদ আবুল আ‘লা মওদূদীর চৌদ্দ বছরের সশ্রম কারাদণ্ডের কথা ঘোষণা করে।

তবে দুই বছর একমাস জেলে থাকার পর ১৯৫৫ সনের ২৯শে এপ্রিল সাইয়েদ আবুল আ‘লা মওদুদী মুক্তি লাভ করেন। তাঁকে মেরে ফেলার চক্রান্তের আসল লক্ষ্য ছিলো ইসলামী শাসনতন্ত্র আন্দোলনের বলিষ্ঠতম কণ্ঠটিকে স্তব্ধ করে দেওয়া। কিন্তু আল্লাহ রাব্বুল আলামীনের ইচ্ছা ছিলো ভিন্ন। তিনি মুক্তি পান। আর ইসলামী শাসনতন্ত্র আন্দোলন বহুগুণ শক্তিশালী হয়ে ওঠে। গণদাবির মুখে গণপরিষদ ১৯৫৬ সনের ২৯শে ফেব্রুয়ারি একটি শাসনতন্ত্র পাস করে।


শাসনতন্ত্র বাতিল ও পুনরায় আন্দোলন

১৯৫৮ সনের ২০শে সেপ্টেম্বর আতাউর রহমান খান সরকারের প্রতি আস্থা ভোটের জন্য পূর্ব পাকিস্তান প্রাদেশিক পরিষদের অধিবেশন বসে। অধিবেশনে স্পিকার আবদুল হামিদের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব পাস হয়। স্পিকারের দায়িত্ব লাভ করেন ডেপুটি স্পিকার শাহেদ আলী পাটোয়ারী। পরিষদে হট্টগোল চলতে থাকে। উত্তেজিত সদস্যদের আঘাতে শাহেদ আলী পাটোয়ারী মারাত্মক আহত হন। তাঁকে হাসপাতালে নেওয়া হয়। তিনি হাসপাতালে মারা যান।

১৯৫৮ সনের ৭ই অকটোবর প্রেসিডেন্ট ইস্কানদার আলী মির্যা দেশে সামরিক শাসন জারি করেন। জাতীয় পরিষদ, প্রাদেশিক পরিষদসমূহ, কেন্দ্রীয় মন্ত্রীসভা ও প্রাদেশিক মন্ত্রীসভাগুলো ভেঙ্গে দেন। নয় বছরের চেষ্টাসাধনার ফসল শাসনতন্ত্রটি বাতিল করে দেন।

প্রধান সামরিক প্রশাসক নিযুক্ত হন সেনাপ্রধান জেনারেল মুহাম্মাদ আইউব খান। ২৭ অক্টোবর আইউব খান প্রেসিডেন্ট পদটিও দখল করেন। চলতে থাকে এক ব্যক্তির স্বৈরশাসন। ১৯৬২ সনের ১লা মার্চ প্রেসিডেন্ট আইউব খান দেশের জন্য একটি নতুন শাসনতন্ত্র জারি করেন। এটি না ছিলো ইসলামিক, না ছিলো গণতান্ত্রিক। এতে বিধান রাখা হয়, দেশের প্রেসিডেন্ট, জাতীয় পরিষদের সদস্যগণ এবং প্রাদেশিক পরিষদের সদস্যগণ ‘মৌলিক গণতন্ত্রী’দের দ্বারা নির্বাচিত হবেন। আর ‘মৌলিক গণতন্ত্রী’ হবেন পূর্ব পাকিস্তানের ইউনিয়ন পরিষদসমূহের চেয়ারম্যান ও মেম্বার মিলে ৪০ হাজার জন এবং পশ্চিম পাকিস্তানের ইউনিয়ন পরিষদসমূহের চেয়ারম্যান ও মেম্বার মিলে ৪০ হাজার জন। অর্থাৎ ৮০ হাজার ব্যক্তি ছাড়া দেশের কোটি কোটি মানুষের ভোটাধিকার কেড়ে নেওয়া হয়।এই আজগুবী শাসনতন্ত্রের বিরুদ্ধে সর্বপ্রথম আওয়াজ তোলে জামায়াতে ইসলামী।

১৯৬২ সনে রাওয়ালপিন্ডির লিয়াকতবাগ ময়দানে অনুষ্ঠিত জনসভায় সাইয়েদ আবুল আ‘লা মওদূদী এই স্বৈরতান্ত্রিক শাসনতন্ত্রের সমালোচনা করে বক্তব্য রাখেন এবং জনগণের ভোটাধিকার ফিরিয়ে দেওয়ার দাবি জানান। এতে প্রেসিডেন্ট আইউব খান ক্ষেপে যান। তাঁরই নির্দেশে তদানীন্তন পূর্ব পাকিস্তান সরকার এবং পশ্চিম পাকিস্তান সরকার ১৯৬৪ সনের ৬ই জানুয়ারি জামায়াতে ইসলামীকে বেআইনী ঘোষণা করে। আমীরে জামায়াত সহ মোট ৬০ জন শীর্ষ নেতাকে গ্রেফতার করা হয়।

বন্দিদের মধ্যে ছিলেন- আমীরে জামায়াত সাইয়েদ আবুল আ‘লা মওদূদী, মিয়া তুফাইল মুহাম্মাদ, নাঈম সিদ্দিকী, নাসরুল্লাহ খান আযিয, চৌধুরী গোলাম মুহাম্মাদ, মাওলানা ওয়ালীউল্লাহ, মাওলানা আবদূর রহীম, অধ্যাপক গোলাম আযম, জনাব আবদুল খালেক, ইঞ্জিনিয়ার খুররম জাহ মুরাদ, অধ্যাপক হেলালুদ্দীন, মাস্টার শফিকুল্লাহ, মাওলানা এ.কিউ.এম. ছিফাতুল্লাহ, অধ্যাপক ওসমান রময্, মাস্টার আবদুল ওয়াহিদ (যশোর), আবদুর রহমান ফকির, জনাব শামসুল হক, মাওলানা মীম ফজলুর রহমান প্রমুখ।

জনাব আব্বাস আলী খান, জনাব শামসুর রহমান ও মাওলানা এ.কে.এম. ইউসুফ জাতীয় পরিষদের সদস্য ছিলেন বিধায় গ্রেফতার হননি। এবারও জামায়াতে ইসলামীর জনশক্তি উচ্চমানের ধৈর্যের উদাহরণ পেশ করেন।

জামায়াতে ইসলামী সরকারের অন্যায় পদক্ষেপের বিরুদ্ধে আইনী লড়াই চালানোর সিদ্ধান্ত নেয়। স্বনামধন্য আইনজীবী মি. এ.কে. ব্রোহীর নেতৃত্বে একটি টিম মামলা পরিচালনা করে। পশ্চিম পাকিস্তান হাইকোর্ট জামায়াতে ইসলামীর বিপক্ষে এবং পূর্ব পাকিস্তান হাইকোর্ট জামায়াতে ইসলামীর পক্ষে রায় দেয়। চূড়ান্ত সিদ্ধান্তের জন্য মামলাটি সুপ্রিম কোর্টে যায়। সুপ্রিম কোর্ট জামায়াতে ইসলামীর পক্ষে রায় দেয়। ১৯৬৪ সনের ৯ই অকটোবর জামায়াতে ইসলামীর নেতৃবৃন্দ কারাগার থেকে মুক্তি লাভ করেন।

‘কম্বাইন্ড অপোজিশন পার্টিজ’

১৯৬৪ সনের ২০শে জুলাই ঢাকায় খাজা নাজিমুদ্দীনের বাসভবনে অনুষ্ঠিত বৈঠকে আইউব খানের স্বৈরশাসনের বিরুদ্ধে একটি রাজনৈতিক জোট গড়ে তোলার সিদ্ধান্ত হয়। এই জোটের নাম দেওয়া হয় ‘কম্বাইন্ড অপোজিশন পার্টিজ’। এতে শরীক ছিল কাউন্সিল মুসলিম লীগ, আওয়ামী লীগ, ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি ও নেযামে ইসলাম পার্টি।

১৯৬৪ সনের সেপ্টেম্বর মাসে ‘কম্বাইন্ড অপোজিশন পার্টিজ’ ১৯৬৫ সনের ২রা জানুয়ারি তারিখে অনুষ্ঠিতব্য প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে আইউব খানের সাথে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার জন্য মি. মুহাম্মাদ আলী জিন্নাহর বোন মিস ফাতিমা জিন্নাহকে নমিনেশন দেয়।

এই সময় জামায়াতে ইসলামী ছিলো বেআইনী ঘোষিত। নেতৃবৃন্দ ছিলেন জেলখানায়। জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় মাজলিসে শূরার যেইসব সদস্য জেলের বাইরে ছিলেন, তাঁরা ১৯৬৪ সনের ২ অক্টোবর একটি মিটিংয়ে একত্রিত হন। তার আগে পাকিস্তানের মুফতি শফি (মা'রেফুল কুরআনের লেখক) থেকে ফতোয়া নেয় জামায়াত। 

‘আলোচনা শেষে মাজলিসে শূরা অভিমত ব্যক্ত করে যে স্বাভাবিক অবস্থায় একজন মহিলাকে রাষ্ট্রপ্রধান করা সমীচীন নয়। কিন্তু এখন দেশে চলছে এক অস্বাভাবিক অবস্থা। স্বৈরশাসক আইউব খানের বিরুদ্ধে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার ক্ষেত্রে মিস ফাতিমা জিন্নাহর কোন বিকল্প নেই। এমতাবস্থায় সার্বিক অবস্থার নিরিখে জামায়াতে ইসলামী প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে মিস ফাতিমা জিন্নাহকেই সমর্থন করবে।’


স্বৈরাচারী আইয়ুবের কবলে জামায়াতে ইসলামী

আইয়ুবের শাসনামলে জামায়াতের আমীর মাওলানা মওদুদীকে কয়েকবার হত্যার চেষ্টা করা হয়। ১৯৬৪ সালে জাময়াতে ইসলামীকে হঠাৎ বেআইনী ঘোষণা করা হলো। জামায়াতে ইসলামী ১৯৬২ সালের শাসনতন্ত্রে মৌলিক অধিকারের নিশ্চয়তা বিধানের দাবিতে সমগ্র দেশব্যাপী স্বাক্ষর অভিযান পরিচালনা করে। এ অভিযানের ফলে মৌলিক অধিকারের দাবি তারা মেনে নিতে বাধ্য হয়েছিল। কিন্তু আইনের খসড়া বিল পরিষদে গৃহীত হওয়া সত্ত্বে ও প্রেসিডেন্ট ইচ্ছাপূর্বক তাতে স্বাক্ষর দিতে বিলম্ব করেন। 

১৯৬৪সালের ৬ই জানুয়ারী জামায়াতকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করে এবং নেতাদের গ্রেফতার করে তারপর ১০ই জানুয়ারী প্রেসিডেন্ট উক্ত বিলে স্বাক্ষর করে। কিন্তু আল্লাহর অনুগ্রহে তার এ পদক্ষেপও জামায়াতকে খতম করতে সক্ষম হয়নি। হাইকোর্ট জামায়াত নেতাদের গ্রেফতারী এবং সুপ্রিম কোর্ট জামায়াতের নিষিদ্ধকরণের নিদের্শকে বাতিল ঘোষণা করে। এর আগে ১৯৫৮ সালেও সামরিক আইনে জামায়াত ৪৫ মাস নিষিদ্ধ ছিলো। 

ভারত-পাকিস্তান যুদ্ধ 

১৯৬৫ সালের ৬ই সেপ্টেম্বর ভারত পাকিস্তানের উপর স্থল ও আকাশ পথে হামলা চালায়। দেশের স্বাধীনতা বিপন্ন হয়। এমন সময় মাওলানার প্রতি চিরদিন বিরূপ-মনোভাবাপন্ন আইয়ুব খান তার কাছে যুদ্ধে সক্রিয় সহযোগিতা কামনা করেন। মাওলানা জিহাদের উপর ক্রমাগত ছ'দিন রেডিও পাকিস্তান থেকে উদ্দীপনাময় ভাষণ দান করেন-জামায়াত কমীগণকে দেশ রক্ষার খেদমতে মাঠে নামিয়ে দেন। জামায়াতে ইসলামীর এ সময়ের নিঃস্বার্থ জাতীয় খেদমত সেনাবাহিনী ও জনগণের মন জয় করে। 

সাধারণ নির্বাচনে অংশগ্রহণ

১৯৭০ সালে পাকিস্তানের ইতিহাসে প্রথম সাধারণ নির্বাচনে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ১৫১ আসনে প্রার্থী দেয় জামায়াত। এর মধ্যে ৪ টি আসন জিতে নেয়। সবচেয়ে বেশি আসনে প্রার্থী দেয় আওয়ামীলীগ এবং তারা সবচেয়ে বেশি আসনে জয়লাভও করে । তৃতীয় সর্বোচ্চ আসনে (১২০) প্রার্থী দেয় ভুট্টোর পাকিস্তান পিপলস পার্টি। নির্বাচনে আওয়ামীলীগ সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করে। আওয়ামীলীগের সবগুলো আসনই ছিল পূর্ব পাকিস্তানে। 

১৯৭১ সালে জামায়াতের ভূমিকা 

১৯৭১ সালে পূর্ব-পাকিস্তানে যা হয়েছে তা মূলত সমাজতন্ত্রী ও ভারতীয় ষড়যন্ত্রের মিলিত ফসল। তারা পাকিস্তানের রাজনৈতিক সংকটের সুযোগ গ্রহণ করেছিল। জামায়াত সেসময় একটি রাজনৈতিক দল হিসেবে অবস্থান নিয়েছে, কোন সশস্ত্র গ্রুপ হয়ে যুদ্ধে অংশগ্রহন করেনি। জামায়াত যুদ্ধ বন্ধে কয়েকবার চেষ্টা করেছিল, শান্তি আনার চেষ্টা করেছিল, সরকার এবং স্বাধীনতাকামীদের মধ্যে সমজোতার চেষ্টা করেছিল কিন্তু দু-পক্ষের বাড়াবাড়িতে সেটা সম্ভব হয়নি। হত্যা খুন, অনাচার উভয়পক্ষ করেছে। জামায়াত উভয়পক্ষের অন্যায় আচরণের প্রতিবাদ করেছে আর বিচ্ছন্নতাবাদীদের বিরুদ্ধে কথা বলেছে যারা ভারতের এজেন্ডা বাস্তবায়ন করেছে।

স্বাধীনতা পরবর্তী বাংলাদেশ

একাত্তরের ১৬ই ডিসেম্বর যে স্বাধীন বাংলাদেশের জন্য হয়েছিল, তার শাসন ব্যবস্থার মূলনীতি মেনে না নিতে পারলেও দেশের স্বাধীন সত্তাকে জামায়াত কর্মীগণ তখনই মেনে নিয়েছে। শাসন ব্যবস্থার মূলনীতি ও শাসন পদ্ধতি সদা পরিবর্তনশীল। জামায়াতে ইসলামী বাংলাদেশ এদেশে ইসলামী সমাজ ব্যবস্থার সংগ্রাম করছে এবং করতে থাকবে। দেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব সংরক্ষণের জন্যেও জামায়াত দৃঢ়সংকল্প।

১৯৭২ সালে স্বাধীন বাংলাদেশের যে সংবিধান রচিত হয় তার অধীনে মুসলমানী জীবন-যাপন সম্ভব ছিল না। এ সম্পর্কে বিভিন্ন বিদেশী সংবাদ সংস্থাও মন্তব্য করে। ইসলামের নামে দল গঠন ও ইসলামী আন্দােলন ও তৎপরতা নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়। গণতন্ত্রকে হত্যা করে এক দলীয় শাসন কায়েম হয়। ইসলামের জাতীয় শ্লোগান “আল্লাহু আকবর’ এর স্থানে ‘জয়বাংলা”। জাতীয় শ্লোগান হয়ে পড়েছিল। স্বাধীন বাংলাদেশে জামায়াত তার কার্যক্রম গোপনে পরিচালনা শুরু করে। ভারপ্রাপ্ত আমির ছিলেন আব্বাস আলী খান। 


আবারো প্রকাশ্যে রাজনীতি 

৭৫ এর পটপরিবর্তনের পর জামায়াত আবারো প্রকাশ্যে আসতে শুরু করে। এর মধ্যে দীর্ঘদিন নির্বাসনে থাকা অধ্যাপক গোলাম আযম দেশে ফিরে আসেন। ১৯৭৯ সালে ধর্মভিত্তিক রাজনৈতিক দলের ওপর নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করা হলে জামায়াতে ইসলামী বাংলাদেশ নামে এ দলটি পুনরায় রাজনৈতিক ময়দানে সক্রিয় হয় এবং মওলানা আব্বাস আলী খানকে দলের ভারপ্রাপ্ত আমীর নির্বাচন করা হয়। ১৯৭৯ সালে এক সাধারণ সভায় জামায়াত পুনরায় প্রকাশ্যে কাজ করার ঘোষণা দেয়। ১৯৮০ সালে প্রথমবারের মত বায়তুল মোকাররমের সামনে জামায়াতের সভা হয়। প্রকাশ্যে এটাই ছিল স্বাধীন বাংলাদেশে প্রথম সম্মেলন।

বাংলাদেশের রাজনীতিতে জামায়াত ধীরে ধীরে গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠে। স্বৈরাচারী এরশাদের অধীনে কোন বিরোধীদল নির্বাচনে যেতে আস্থাবান না হওয়ায় জামায়াত ১৯৮৪ সালে এক অসাধারণ নির্বাচনী ব্যবস্থার প্রস্তাব দেয়। কেয়ারটেকার সরকার ব্যবস্থা। ১৯৮৪ সাল থেকেই কেয়ারটেকার সরকারের দাবীতে আন্দোলন করে আসছে জামায়াত। ১৯৮৬ সালে অনুষ্ঠিত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জামায়াতে ইসলামী ১০টি আসনে জয়লাভ করে। জেনারেল হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের স্বৈরশাসনের বিরুদ্ধে আন্দোলনের কৌশল হিসেবে জামায়াতের ১০ জন সংসদ সদস্য ১৯৮৭ সালের ৩ ডিসেম্বর সংসদ থেকে পদত্যাগ করেন।  ১৯৮৯ সালে সকল বিরোধীদল কেয়ারটেকার পদ্ধতিকে স্বাগত জানিয়ে এরশাদ বিরোধী আন্দোলনে অংশগ্রহণ করে। 

১৯৯০ সালে এরশাদ সরকারের পতন ঘটে। জামায়াত রাজনীতিতে শক্ত অবস্থানে আসীন হয়। ১৯৯১ সালে নির্বাচনে ১৮টি আসনে জিতে নেয় জামায়াত। জামায়াতের সমর্থনে বিএনপি সরকার গঠন করে। অধ্যাপক গোলাম আজম আনুষ্ঠানিকভাবে জামায়াতের আমির ঘোষিত হন।

১৯৯২ সালে জামায়াতের বিরুদ্ধে ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি গঠিত হয়। তারা জামায়াতকে অবৈধ ঘোষণার জন্য এবং গোলাম আযমকে অবৈধ নাগরিক হিসেবে শাস্তি দাবী করে সারাদেশে প্রচারণা চালায়। কয়েক স্থানে জামায়াতের সাথে ঘাদানিকের সংঘর্ষ হয়। ঘাদানিকের চাপে গোলাম আযম গ্রেফতার হন। ১৯৯৪ সালে উচ্চ আদালতের রায়ে অধ্যাপক গোলাম আযমের নাগরিকত্ব পুনঃস্থাপিত হয়। সে বছরই কার্যত ঘাদানিকের পতন হয়। 

১৯৯৬ সালে জামায়াত পুনরায় কেয়ারটেকার সরকারের দাবীতে আন্দোলন করে বিএনপির বিরুদ্ধে। বিএনপি একদলীয় নির্বাচন করে। তীব্র প্রতিবাদের মুখে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন দিতে বাধ্য হয়। বিএনপির হটকারিতায় ২১ বছর পর ক্ষমতায় আসে আওয়ামী লীগ। 

ক্ষমতার অংশীদার 

১৯৯৯ সালে আওয়ামীলীগের বিরুদ্ধে চারদলীয় ঐক্যজোট গঠিত হয়। ২০০১ সালে নির্বাচনে চারদলীয় জোট বিপুল জনসমর্থন নিয়ে ক্ষমতায় আসে। স্বাধীন বাংলাদেশে এই বছরই প্রথম ক্ষমতার স্বাদ পায় জামায়াত। তিনটি মন্ত্রনালয়ের দায়িত্ব পায় জামায়াত। আমেরিকান প্রেসিডেন্ট জর্জ বুশের কথিত সন্ত্রাস বিরোধী অভিযানে যোগ দেয় নি জোট সরকার। তাই বাংলাদেশেও জঙ্গী লেলিয়ে দেয় সাম্রাজ্যবাদীরা। ২০০৫ সালে জঙ্গী বিরোধী ভূমিকায় জামায়াত ব্যাপক সফলতা পায়।    

পুনরায় ক্ষমতাছাড়া এবং নির্যাতন শুরু 

২০০৬ সালের ২৮ অক্টোবর ক্ষমতা ছাড়ার দিন আওয়ামীলীগ ব্যাপক আক্রমণ করে জামায়াতের উপর। এতে প্রায় ১০ জনের মত জামায়াত কর্মী নিহত হয়।  ২০০৭ সালের ২২ জানুয়ারি সেনাবাহিনী অবৈধভাবে ক্ষমতা গ্রহণ করে কেয়ারটেকার সরকারকে পুতুল বানিয়ে রাখে। দুই বছর সেনাশাসনে রাজনীতিবিদরা চরম অপদস্থ হয় দূর্নীতির দায়ে। জামায়াত এসময় সারাদেশে একটি নির্লোভ ও সৎ দল হিসেবে স্বীকৃত হয়। 

২০০৯ সালে আওয়ামীলীগ সেনা কর্মকর্তাদের দায়মুক্তির অঙ্গিকার করে ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত হয়। ২০১০ সালে জামায়াতের সকল শীর্ষনেতা গ্রেফতার হন। শুরু হয় তথাকথিত যুদ্ধাপরাধের বিচার। এর বিরুদ্ধে আন্দোলন করতে থাকে জামায়াত। ২০১৩ সালে রায় আসতে শুরু হয়। অবৈধ রায়ের বিরুদ্ধে বিক্ষোভে ফেটে পড়ে জামায়াত কর্মীরা। সারাদেশে হাজার হাজার নেতাকর্মী গ্রেপ্তার হন। নিহত হন শতাধিক কর্মী।

২০১৩ সালের ৫ ফেব্রুয়ারি জামায়াতের বিরুদ্ধে গণজাগরণ মঞ্চ গঠিত হয়। এর বিরুদ্ধে হেফাযতে ইসলাম তৈরী হয়। হেফাযতের গনজোয়ারে অল্প কয়েকমাসের মধ্যেই গণজাগরণ মঞ্চ ভেসে যায়।

১২ ডিসেম্বর ২০১৩ সালে জামায়াত নেতা আব্দুল কাদের মোল্লা শাহদাতবরণ করেন। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি একদলীয় নির্বাচন করে আওয়ামীলীগ। নজিরবিহীনভাবে ১৫৪ জন বিনা ভোটেই নির্বাচিত হয়। স্বৈরাচারী এরশাদের জাতীয় পার্টি ছাড়া সকল দল নির্বাচন বয়কট করে।

২৩ অক্টোবর ২০১৪ সালে জামায়াতের প্রবীণ নেতা, বিশ্ব ইসলামী আন্দোলনের পুরোধা অধ্যাপক গোলাম আযম কারান্তরীন অবস্থায় শাহদাতবরণ করেন।  ১১ এপ্রিল ২০১৫ সালে জামায়াত নেতা কামারুজ্জামান শাহদাতবরণ করেন। ২২ নভেম্বর ২০১৫ সালে জামায়াতে ইসলামী বাংলাদেশের সেক্রেটারি জেনারেল এবং সাবেক মন্ত্রী আলী আহসান মোঃ মুজাহিদ শাহদাতবরণ করেন।        

১১ মে ২০১৬ সালে জামায়াতের আমীর মতিউর রহমান নিজামীকে অন্যায়ভাবে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করে ফ্যাসিবাদী আওয়ামী সরকার। সারা মুসলিম জাহানে এই হত্যাকাণ্ডের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ হয়। তুরস্ক তাদের দূতকে প্রত্যাহার করে নেয়। ৩ সেপ্টেম্বর ২০১৬ সালে শাহদাতবরণ করেন জামায়াত নেতা মীর কাশেম আলী।

মূলত ২০১৩ সাল থেকে এখন পর্যন্ত বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর প্রতি নির্যাতনের স্টিমরোলার চলছে। এই কয় বছরে জামায়াতের শতাধিক নেতাকর্মীকে শাহদাতবরণ এবং লক্ষাধিক নেতাকর্মীকে কারাবরণ করতে হয়। বর্তমানে জামায়াতের আমীর ডা. শফিকুর রহমান এবং সেক্রেটারি জেনারেল মিয়া গোলাম পরওয়ার।

সহায়ক সূত্র
১। জামায়াতে ইসলামীর ইতিহাস/ আব্বাস আলী খান
২। প্রবন্ধ/ রাজনীতিতে জামায়াতে ইসলামী/ এ কে এম নাজির আহমাদ/ ছাত্রসংবাদ/ জুলাই-আগস্ট ২০১৩
৩। জামায়াতে ইসলামীর ঊনত্রিশ বছর/ সাইয়্যেদ আবুল আ'লা মওদুদী
৪। জামায়াতে ইসলামীর উদ্দেশ্য ইতিহাস এবং কর্মসূচী/ সাইয়্যেদ আবুল আ'লা মওদুদী  

২টি মন্তব্য: