৪ নভেম্বর, ২০২০

আমেরিকায় যেভাবে প্রেসিডেন্ট নির্বাচন হয়



আমেরিকা কেন ইলেক্টোরাল কলেজ পদ্ধতিতে নির্বাচন হয় এই নিয়ে আমাদের অনেক প্রশ্ন রয়েছে। অনেকে আবার বুঝতেও পারছি না কী থেকে কী হয়! যাই হোক আমি ট্রাই করবো আমার বুঝমতো আপনাদের বুঝিয়ে দেওয়ার জন্য। কিন্তু তার আগে আমরা ইতিহাস থেকে ঘুরে আসি। 

আমেরিকা যখন ইংল্যান্ডের সাথে যুদ্ধ করে স্বাধীন হয়েছিল তখন আমেরিকা এখনকার মতো এক দেশ ছিল না। তারা অনেকগুলো রাজ্যে বিভক্ত ছিল। সবগুলো রাজ্য একসাথে জোট করে বিদ্রোহ করেছে এবং ইংল্যান্ডকে পরাজিত করেছে। তাদের কোনো রাজা বা রাজ পরিবার ছিল না। তাই নেতা নির্বাচনে তারা ভিন্ন চিন্তা করতে বাধ্য হয়েছিল। স্বাধীনতার স্থপতিরা নিজেদের জন্য একটি সংবিধান ও নির্বাচন পদ্ধতি আবিষ্কারের চেষ্টা করেছিলেন। তারই ধারাবাহিকতায় আজকের এই নির্বাচন পদ্ধতি। 

সমস্যা ছিল দাসদের নিয়ে। তারা কী ভোটাধিকার পাবে? এই নিয়ে অনেক দাঙা হাঙ্গামা। দাসরা, আদিবাসীরা তো ভোটাধিকার চায়, কিন্তু শ্বেতাঙ্গরা সেই অধিকার দিতে রাজি না। অনেক পদ্ধতি এপ্লাই করা হলো। প্রথমে দাসদের ভোটাধিকার দেওয়া হলো না। 

দাসরা সংখ্যায় ছিল বেশি। ভোটাধিকার না থাকলেও তাদের জনসংখ্যা গণনায় তাদের এড করা হতো। তবে তাদের পূর্ণাঙ্গ মানুষ হিসেবে কাউন্ট করা হতো না। তাদের কাউন্ট করা হতো ৩/৫ অর্থাৎ .৬ মানে। আরো ভালোভাবে বুঝিয়ে বললে পাঁচজন দাসের সংখ্যা আর তিন জন স্বাধীন মানুষের সংখ্যা সমান হিসেবে ধরা হতো। 

নানান আন্দোলনের মধ্য দিয়ে দাসেরা ভোটাধিকার পেল। এরপর মানুষ হিসেবে সবার মান সমান হয়ে গেল। কিন্তু নেতারা চিন্তা করলেন প্রেসিডেন্টের মতো গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে সাধারণ মানুষের কাছে ছেড়ে দেওয়া উচিত হবে না। বিশেষ করে আদিবাসী কালোরা ও দাসেরা মিলে যদি দাসদের মধ্যে থেকে কাউকে প্রেসিডেন্ট বানিয়ে ফেলে তাহলে বিষয়টা ভয়ংকর হবে। এই ভয় তাদের তাড়িয়ে ফিরেছে। 

তখন তারা কংগ্রেস ও মিনি কংগ্রেস প্রতিষ্ঠা করলো। প্রতিটা রাজ্য থেকে কংগ্রেস সদস্য ও মিনি কংগ্রেস সদস্য নির্বাচিত হবে। এই নির্বাচন জনগণের সরাসরি ভোটে হবে। তাদের কিছু যোগ্যতা থাকবে। কংগ্রেস ও মিনি কংগ্রেসের সদস্যরা মিলে এবার প্রেসিডেন্ট নির্বাচন করবে। এই পদ্ধতিতে কোনো কৃষ্ণাঙ্গ, দাস ও আদিবাসী প্রেসিডেন্ট হওয়ার সম্ভাবনা কমে যায়। দাসপ্রথা বিলুপ্ত হয়ে যাওয়ার পর এই সমস্যা আর থাকে না। তারপরও এখনো আমেরিকায় শ্বেতাঙ্গ জাতীয়তাবাদ প্রবলভাবে বিদ্যমান। 

এবার আমরা বর্তমান ইলেক্টোরাল কলেজ পদ্ধতিতে আসি

ইলেক্টোরাল কলেজকে বাংলা করলে হবে নির্বাচকমণ্ডলীদের সভা। এটা আমাদের জাতীয় সংসদের মতো। এখানে সদস্য সংখ্যা ৫৩৮। আমেরিকায় রাজ্য সংখ্যা হলো ৫০ টি। প্রতিটি রাজ্য থেকে তাদের জনসংখ্যা অনুসারে প্রতিনিধি নির্বাচন করা হয়। এদের কে বলা হয় হাউজ অব রিপ্রেসেন্টেটিভ। এদের সংখ্যা ৪৩৫ জন। প্রতিটি রাজ্য থেকে দুই জন সিনেটর নেওয়া হয়। সেই হিসেবে মোট সিনেটর হলেন ১০০ জন। আর আমেরিকাতে একটি স্বাধীন জেলা আছে তার নাম ডিস্ট্রিক্ট অব কলম্বিয়া। এটি রাজ্য নয় বিধায় এখান থেকে সিনেটর হয় না। তবে এখান থেকে ৩ জন ইলেক্টর নেওয়া হয়। সব মিলিয়ে ৪৩৫+১০০+৩= ৫৩৮ জন। এই ৫৩৮ জন হলেন নির্বাচক। তারাই প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে এটেইন করবেন। এই ৫৩৮ জনের ভোটকে ইলেক্টোরাল কলেজ ভোট বলা হয়। 

যে রাজ্যে জনসংখ্যা বেশি সে রাজ্যে হাউজ অব রিপ্রেজেন্টেটিভ বেশি। সবচেয়ে বেশি ক্যালিফোর্নিয়াতে। সেখানে ৫৩ জন। আর রয়েছে ২ জন সিনেটর। সব মিলিয়ে ৫৫ জন ইলেক্টোরাল রয়েছে ক্যালিফোর্নিয়াতে। টেক্সাসে রয়েছে ৩৮ টি। এভাবে নানান রাজ্যে নানান সংখ্যায় আছে। 

বিষয়টা সুন্দর ও যুক্তিযুক্ত নির্বাচন হতো যদি ক্যালিফোর্নিয়ার জনগণ তাদের ৫৩ জন হাউজ অব রিপ্রেসেন্টেটিভ ও ২ জন সিনেটরকে আলাদাভাবে নির্বাচন করতেন। এভাবে সব রাজ্য তাদের সংসদ সদস্যদের নির্বাচিত করতেন। তারপর নির্বাচকরা পরবর্তীতে প্রেসিডেন্ট কে হবে তা নির্ধারণ করতেন! এভাবে হলে জনগণের ভোটের প্রতিফলন হতো। 

কিন্তু আমেরিকাতে তা না করে যা করা হয়, তা হলো জনগণ সরাসরি প্রেসিডেন্টকেই ভোট দেন। যে রাজ্যে যে জিতে সে রাজ্যে আর অন্য প্রার্থীর কোনো অধিকার থাকে না। যেমন টেক্সাসে যদি ট্রাম্প জিতেন তবে টেক্সাসের ৩৮ টি সিট তিনিই পাবেন। যিনি ক্যালিফোর্নিয়াতে জিতবেন তিনি ক্যালিফোর্নিয়ার ৫৫ সিট জিতে নিবেন। এর ফলে যা হয়, তা হলো মাত্র কয়েকটি বড় প্রদেশের মাধ্যমেই ফলাফল নির্ধারিত হয়ে যাচ্ছে। ছোট প্রদেশগুলো গুরুত্ব হারিয়েছে। 

মনে করুন, ক্যালিফোর্নিয়াতে বাইডেন জিতলো মাত্র ১০০ ভোটের ব্যবধানে। এর মাধ্যমে সে ক্যালিফোর্নিয়ার পুরো ৫৫ সিট পেয়ে গেল। অন্যদিকে মনে করুন, ট্রাম্প টেক্সাসে জিতলো ২ লক্ষ ভোটের ব্যবধানে। সে পেল টেক্সাসের ৩৮ সিট। এই দুই রাজ্যের হিসেবে বাইডেন জিতবে কিন্তু সে ভোট পেল কম। আর ট্রাম্প ভোট বেশি পেয়ে হেরে যাবে। 

এভাবে বর্তমান নির্বাচন ব্যবস্থায় জনগণের ভোট কম পেলেও জিতে যাওয়ার পরিস্থিতি তৈরি হয়। যেভাবে গত নির্বাচনে ট্রাম্প জিতেছিলো। আবার প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে হেরে গিয়েও কোনো দল সিনিটে প্রাধান্য বিস্তার করতে পারে। কারণ রাজ্যপ্রতি দুইজন সিনেটর নির্বাচিত হন। বড় রাজ্যে থেকেও যেমন দুইজন সিনেটর তেমনি ছোট রাজ্য থেকেও দুইজন সিনেটর নির্বাচিত হন। একজন প্রেসিডেন্ট বড় কয়েকটি রাজ্যে জিতে জয়লাভ করতে পারেন। কিন্তু তিনি যদি ২৫ টির কম রাজ্যে জিতেন তবে তিনি সিনেটে সংখ্যাগরিষ্ঠতা হারাবেন। 

সবচেয়ে বেশি ইলেকটোরাল ভোট রয়েছে ক্যালিফোর্নিয়ায়, ৫৫টি। এরপর রয়েছে টেক্সাস ৩৮, নিউ ইয়র্ক ও ফ্লোরিডায় ২৯, ইলিনয় ও পেনসিলভানিয়ায় ২০টি করে। এছাড়া, ওহাইওতে ১৮, মিশিগান ও জর্জিয়ায় ১৬, নর্থ ক্যারোলাইনায় ১৫, নিউ জার্সিতে ১৪, ভার্জিনিয়াতে ১৩, ওয়াশিংটনে ১২, আরিজোনা, টেনেসি, ম্যাসাচুসেটস ও ইন্ডিয়ানায় ১১, মিনেসোটা, উইসকনসিন, ম্যারিল্যান্ড ও মিজৌরিতে ১০, অ্যালবামা, সাউথ ক্যারোলাইনা ও কলোরাডোতে ৯, কেন্টাকি ও লুইজিয়ানায় ৮, কনেটিকাট, অরিগন ও ওকলাহোমায় ৭, মিসিসিপি, আরকানস, ক্যানজাস, আইয়োয়া, নেভাডা ও ইউটায় ৬; ওয়েস্ট ভার্জিনিয়া, নিউ মেক্সিকো ও নেব্রাস্কায় ৫; নিউ হ্যাম্পশায়ার, মেইন, রোড আইল্যান্ড, আইডাহো ও হাওয়াইতে ৪; মন্টেনা, নর্থ ডেকোটা, ভারমন্ট, ডেলাওয়ার, ওয়াইওমিং, সাউথ ডেকোটা ও আলাস্কায় ৩টি ইলেকটোরাল ভোট রয়েছে।

0 comments:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন