৮ অক্টোবর, ২০১৫

বাংলাদেশ নিয়ে আমেরিকান ষড়যন্ত্র


অস্ট্রেলিয়া বাংলাদেশে খেলতে আসেনি, এটা অস্ট্রেলিয়ার জন্য যতটা ভালো হয়েছে তার চাইতে বেশী ভালো হয়েছে বাংলাদেশের জন্য। আমার এখন স্পষ্ট মনে হচ্ছে অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দলের উপর হামলা করার জন্য আন্তর্জাতিকভাবে একটা ষড়যন্ত্র হচ্ছিল। যেভাবেই হোক অস্ট্রেলিয়া সেটা টের পেয়ে তাদের ক্রিকেট দলকে পাঠায়নি।
আমেরিকা যেহেতু উল্লফনটা বেশী করছে সেহেতু আমেরিকা যুক্ত আছে এই ষড়যন্ত্রের সাথে এটা বলার অপেক্ষা রাখেনা। এই বিষয়টা আমার মনে হয়েছে যেদিন ইতালির নাগরিক নিহত হয়েছে। প্রথম আলোসহ অনেক পত্রিকায় নিউজ হয়েছে আমেরিকান নাগরিক নিহত। তারমানে একটা পক্ষ জানে একজন আমেরিকান খুন হবে। পরে দেখা গেল এটা ইতালির নাগরিক। সম্ভবত খুনিদের ভুলে বা ছক ঠিক করতে পারেনি বলে আমেরিকানের স্থলে ঐ ইতালিয় নিহত হয়েছেন।
এখানে আই এস জড়িত এটা আমেরিকার এক থার্ড ক্লাস নিউজ পোর্টাল বলেছে। ব্যাস সারাবিশ্বে এটা রটে গেলো। দেখা গেলো একজন ইতালীয় হত্যা দিয়ে পরিস্থিতি তাদের পক্ষে আনা যাবেনা। তাই আরেকজন বিদেশী খুন করা হয়েছে। ওরা বেচে বেচে এমন লোককে খুন করলো যিনি ইতিমধ্যে মুসলিম হয়েছেন।
একজন মুসলিম খুন করা হলো, আবার ঐ খুনের দায়ে মুসলিমদেরও ফাঁসানোর চেষ্টা চলছে। ঐ খুনের স্বীকার করা টুইটার বার্তাও রয়টার্স আবিষ্কার করে। গতকাল আবার জাপান বললো, আই এস'র অনলাইন রেডিও নাকি স্বীকার করেছে তারা হোসিও কুনিকে হত্যা করেছে। কারণ হিসেবে উল্লেখ করেছে, জাপান আই এস বিরোধী জোটে অংশগ্রহন করেছে তাই তারা এই মুসলিম লোকটিকে হত্যা করেছে। কোথায় সিরিয়া, ইরাক আর কোথায় বাংলাদেশে অবস্থান করা হোসি কুনি !!
বাংলাদেশে আমেরিকা-ইসরাঈল পরিচালিত আই এস নামক সন্ত্রাসীদের কোন স্থান হবেনা যেমনিভাবে হয়নি ভারত পরিচালিত জেএমবি'র স্থান, ইনশাআল্লাহ্‌। এদেশের বেশীরভাগ মানুষ প্র্যাক্টিসিং মুসলিম না হলেও ইসলামের প্রাথমিক জ্ঞান তাদের মধ্যে আছে। তাই এদেশে কিছু দুষ্কৃতিকারী ইসলামের নামে সন্ত্রাসী করে ইসলামের অপমান করে পার পাবেনা।
আমরা ২০০৫ সালে দেশের সবক'টি মসজিদ থেকে যেভাবে এসব সন্ত্রাসীর বিরুদ্ধে দুর্বার আন্দোলন গড়ে তুলেছি আবারো সেভাবে আমরা এসব সন্ত্রাসীদের প্রতিহত করবো, ইনশাআল্লাহ্‌।

0 comments:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন