২ নভেম্বর, ২০২০

বঙ্গকথা পর্ব-৬১ : পিডিএম, ভুট্টো এবং আইয়ুব খানের বিরুদ্ধে সর্বাত্মক আন্দোলন

 

১৯৬৬ সালে আইয়ুব বিরোধী জোটের আন্দোলন নষ্ট করে দেয় আইয়ুব খান শেখ মুজিবের মাধ্যমে। এরপর বিরোধী দলগুলো আবারো আইয়ুবের বিরুদ্ধে জোট গঠন করে। এবারের উদ্যোক্তা আতাউর রহমান খান। আতাউর রহমান খান ছিলেন আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সহ-সভাপতি। তিনি কিছুদিন পূর্ব পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীও ছিলেন। যেসব সিনিয়র নেতাকে শেখ মুজিবুর রহমান নিউক্লিয়াসের মাধ্যমে আওয়ামী লীগের নেতৃত্ব থেকে সরিয়ে দেন তাদের মধ্যে একজন আতাউর রহমান খান। 

১৯৬৭ সনের ৩০ এপ্রিল পূর্ব পাকিস্তানের রাজধানী ঢাকাতে জনাব আতাউর রহমান খানের বাসায় ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক ফ্রন্টের নুরুল আমীন ও হামিদুল হক চৌধুরী, কাউন্সিল মুসলিম লীগের মিয়া মুমতাজ মুহাম্মাদ খান দাওলাতানা, তোফাজ্জল আলী ও খাজা খায়েরউদ্দীন, জামায়াতে ইসলামীর মিয়া তুফাইল মুহাম্মাদ, মাওলানা আবদুর রহীম ও অধ্যাপক গোলাম আযম, নিখিল পাকিস্তান আওয়ামী লীগের নওয়াবজাদা নাসরুল্লাহ খান, এডভোকেট আবদুস সালাম খান ও গোলাম মুহাম্মদ খান লুখোর, নেজামে ইসলাম পার্টির চৌধুরী মুহাম্মাদ আলী, মৌলবী ফরিদ আহমদ ও এম.আর. খান এক গুরুত্বপূর্ণ মিটিং করেন এবং পাকিস্তান ডেমোক্রেটিক মুভমেন্ট' (P.D.M.) নামে একটি রাজনৈতিক জোট গঠনের ঘোষণা দেন। এইভাবে নতুন করে শুরু হয় গণতন্ত্র তথা জনগণের ভোটাধিকার পুনরুদ্ধারের আন্দোলন।

বিরোধী দলের জোট থেকে বাদ পড়ে শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বাধীন পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামী লীগ ও ভাসানীর ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি। ‘পাকিস্তান ডিমোক্রেটিক মুভমেন্ট'-এর শরীক দল ছিলো পাঁচটি। ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট, কাউন্সিল মুসলিম লীগ, আওয়ামী লীগ, নেজামে ইসলাম পার্টি ও জামায়াতে ইসলামী। উল্লেখ্য, ছয় দফা আন্দোলন নিয়ে আওয়ামীলীগে ভাঙন হয়। সভাপতি মাওলানা আবদুর রশীদ তর্কবাগীশ ও রাজশাহীর মুজিবুর রহমান পরিচালিত অংশটি পাকিস্তান ডেমোক্রেটিক মুভমেন্টে’ যোগ দেয়। সেক্রেটারি থেকে নিজেকে সভাপতি ঘোষণা করা শেখ মুজিবুর রহমান এবং রাজশাহীর কামারুজ্জামান পরিচালিত অংশটি “ছয় দফা” ভিত্তিক আন্দোলন চালাতে থাকে। পাকিস্তান ডেমোক্রেটিক মুভমেন্ট'-এর পূর্ব পাকিস্তান শাখার সভাপতি ছিলেন আওয়ামী লীগের এডভোকেট আবদুস সালাম খান এবং সেক্রেটারি ছিলেন জামায়াতে ইসলামীর অধ্যাপক গোলাম আযম।

‘পাকিস্তান ডেমোক্রেটিক মুভমেন্ট'-এর ৮ দফা দাবি

১. শাসনতন্ত্রে নিম্ন বিধানসমূহের ব্যবস্থা থাকবে।

ক. পার্লামেন্টারি পদ্ধতির ফেডারেল সরকার; 

খ. ১৯৫৬ সালের শাসনতন্ত্র মোতাবেক প্রাপ্তবয়স্কদের প্রত্যক্ষ ভোটে নির্বাচিত আইন পরিষদের প্রাধান্য; 

গ. পূর্ণাঙ্গ মৌলিক অধিকার; 

ঘ. সংবাদপত্রের অবাধ আজাদি;

ঙ. বিচার বিভাগের নিশ্চিত স্বাধীনতা। 

২. ফেডারেল সরকার নিম্ন বিষয়সমূহের উপর ক্ষমতা প্রয়োগ করবেন। 

ক. প্রতিরক্ষা (ডিফেন্স); 

খ. বৈদেশিক বিষয়;  

গ. মুদ্রা ও কেন্দ্রীয় অর্থব্যবস্থা; 

ঘ. আন্তঃপ্রাদেশিক যোগাযোগ ও বাণিজ্য এবং ঐকমত্যে নির্ধারিত অন্য যে কোন বিষয়।

৩. পূর্ণ আঞ্চলিক স্বায়ত্বশাসন কায়েম করা হবে এবং কেন্দ্রীয় বিষয় ছাড়া সরকারের অবশিষ্ট যাবতীয় ক্ষমতা শাসনতন্ত্র মোতাবেক স্থাপিত আঞ্চলিক সরকারের নিকট ন্যস্ত থাকবে। 

৪. উভয় প্রদেশের মধ্যে বিরাজমান অর্থনৈতিক বৈষম্য ১০ বছরের মধ্যে দূর করা পাকিস্তান সরকারের শাসনতান্ত্রিক দায়িত্ব হবে। 

৫.ক. মুদ্রা, বৈদেশিক মুদ্রা ও কেন্দ্রীয় ব্যাংকিং 

খ. আন্তঃআঞ্চলিক বাণিজ্য; 

গ. আন্তঃআঞ্চলিক যোগাযোগ; 

ঘ. বৈদেশিক বাণিজ্য। 

উপরিউক্ত বিষয়সমূহের প্রত্যেকটি পূর্ব ও পশ্চিম পাকিস্তানের সমসংখ্যক সদস্য নিয়ে গঠিত এক একটি বোর্ড দ্বারা পরিচালিত হবে। জাতীয় পরিষদের প্রত্যেক প্রদেশের সদস্যগণ নিজ প্রদেশের জন্য উক্ত বোর্ডসমূহের সদস্যগণকে নির্বাচিত করবেন। 

৬. সুপ্রিমকোর্ট এবং কূটনৈতিক বিভাগসহ কেন্দ্রীয় সরকারের সকল বিভাগ ও স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান পূর্ব ও পশ্চিম পাকিস্তানের সমসংখ্যক ব্যক্তি দ্বারা গঠিত হবে। এই সংখ্যাসাম্য অর্জনের জন্য ভবিষ্যতে এমনভাবে কর্মচারী নিয়োগ করতে হবে যাতে ১০ বছরের মধ্যে তাদের সংখ্যা উভয় প্রদেশে সমান হতে পারে। 

 ৭. প্রতিরক্ষা ক্ষেত্রে কার্যকর সামরিক শক্তি ও সমরসজ্জার ব্যাপারে উভয় অঞ্চলের মধ্যে সমতা বিধান করা পাকিস্তান সরকারের শাসনতান্ত্রিক দায়িত্ব হবে। 

৮. এই ঘোষণায় শাসনতন্ত্র শব্দ দ্বারা ১৯৫৬ সালের শাসনতন্ত্র বুঝায়, যা অবিলম্বে জারি করা হবে। এই শাসনতন্ত্র চালু করবার ৬ মাসের মধ্যে কেন্দ্রীয় ও প্রাদেশিক আইন পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

পিডিএমের নেতৃত্বে নতুন করে আইয়ুবের বিরুদ্ধে আন্দোলন শুরু হয়। সারা পাকিস্তানে সাড়া পড়ে যায়। যদিও পিডিএমের উদ্যোক্তাসহ বড় নেতারা ছিলেন পূর্ব পাকিস্তানের কিন্তু পিডিএমের আন্দোলন জমে উঠেছিল পশ্চিম পাকিস্তানে। পূর্ব পাকিস্তানে আন্দোলনে চাঙ্গা ছিল শেখ মুজিবের নেতৃত্বাধীন ছয় দফা আন্দোলন। নিউক্লিয়াস ও ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থার সম্মিলিত প্রচেষ্টায় জ্বালাও পোড়াও শুরু হয়েছে। আর পশ্চিম পাকিস্তানে আন্দোলন জমে উঠেছে পাঞ্জাবে। বিশেষ করে পাঞ্জাব বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররা আইয়ুবের স্বৈরাচারী আচরণের প্রতিবাদে ও মৌলিক গণতন্ত্র বাদ দিয়ে সাধারণ নির্বাচনের দাবিতে আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছিল। 

এই আন্দোলনে জ্বালানী হিসেবে কাজ করেন জুলফিকার আলী ভুট্টো। তিনি ছিলেন আইয়ুব সরকারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী। আইয়ুব খান ভারত-পাকিস্তান যুদ্ধ ও তাশখন্দ চুক্তির ব্যর্থতা তার ওপর চাপিয়ে নিজেকে বাঁচাতে চেয়েছেন। তিনি তাকে দেশবিরোধী ষড়যন্ত্রের অভিযোগ এনে বরখাস্ত করেন। জুলফিকার আলী ভুট্টো ১৯৬৭ সালের শুরুতে পাকিস্তান পিপলস পার্টি নামে একটি রাজনৈতিক দল গঠন করেন। নতুন দল করে আইয়ুব বিরোধী জ্বালাময়ী বক্তব্য ও মন্ত্রী থাকাকালীন কিছু ঘটনা বর্ণনা করে ভুট্টো রাতারাতি জনপ্রিয় দলে পরিণত হতে থাকে। 

পাকিস্তানি পিপলস পার্টি ছিল একটি প্রগতিশীল, গণতান্ত্রিক সমাজতান্ত্রিক দল যা সামাজিক উদারনীতি ও গণতান্ত্রিক নীতির সমর্থক। তার দলটি এমন ছিল এতে জাতীয়তাবাদী, ডানপন্থী, বামপন্থী ও সাধারণ মানুষ একত্রিত হতে পারে। তিনি জনগণের ভাষায় কথা বলতে সক্ষম হয়েছিলেন এবং অল্প সময়ের মধ্যে জনপ্রিয়তা অর্জনে সক্ষম হন। হত্যার চেষ্টা, মিথ্যা পুলিশি মামলা, কারাবাস এবং তার বন্ধুদের এবং পরিবারের নির্যাতন সত্ত্বেও ভুট্টো সরকার বিরোধী বিক্ষোভ থেকে তাকে কেউ সরাতে পারেনি।

পিডিএমের নেতৃত্বে আইয়ুব সরকারের স্বৈরাচারী আচরণের বিরুদ্ধে, নির্যাতনের বিরুদ্ধে, অর্থনীতি অল্পকিছু মানুষের কাছে কুক্ষিগত করার বিরুদ্ধে পাকিস্তানের বেশিরভাগ নাগরিকরা প্রতিবাদ শুরু করে। এতে বেশি ভূমিকা রাখে পাঞ্জাব ও সিন্ধু অঞ্চলের মানুষেরা। সামাজিক ও রাজনৈতিক বিরোধিতা এবং প্রতিরোধের কাজটা শুরু হয় বেকার যুবক এবং শিক্ষার্থীদের দিয়ে। ছাত্ররা আইয়ুব খানের অর্থনৈতিক নীতির প্রতিবাদে তাদের ডিগ্রি সার্টিফিকেট পুড়িয়েছে।

১৯৬৮ সালে, যখন আইয়ুব খান "উন্নয়নের দশক" উদযাপন করার সিদ্ধান্ত নেয়, তখন জাতীয় ছাত্র ফেডারেশন এটিকে নিন্দা করে এবং তারা "পরিবর্তনের দশক" নাম দিয়ে আন্দোলন শুরু করে। সামাজিক গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা ও অর্থনৈতিক নীতি পরিবর্তনের জন্য ছাত্ররা আন্দোলন শুরু করে। ন্যাশনাল স্টুডেন্ট ফেডারেশনের নেতৃত্বে পাকিস্তানে বিভিন্ন শহরে যেমন করাচি, রাওয়ালপিন্ডি এবং পেশোয়ারে বিক্ষোভ শুরু হয়।

১৯৬৮ সালের অক্টোবর মাসে, সামরিক স্বৈরশাসক উন্নয়নের দশক উদযাপন করতে লাহোরের দুর্গ স্টেডিয়ামটি নির্বাচন করেছিল। সরকার সেখানে পাঞ্জাব বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদের থাকতে বলে। বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররা সবাই সেখানে জড়ো হয়। স্টেডিয়াম একেবারে পরিপূর্ণ হয়ে যায় ছাত্রদের দ্বারা। অনুষ্ঠান শুরুর প্রাক্কালে ন্যাশনাল স্টুডেন্ট ফেডারেশনের নেতৃত্বে হঠাৎ একটি গান গাওয়া হয় যার শিরোনাম ছিল বিষাদের দশক। পুরো স্টেডিয়াম জুড়ে সব ছাত্র কোরাস করতে লাগলো। ছাত্রদের এই বিষয়টা ছিল পূর্বপরিকল্পিত। আগত অন্যান্যরাসহ সরকার পুরোপুরি শকড হলো। ছাত্রদের এমন পরিকল্পনা সরকারের অজানা ছিলো। অল্প সময়ের মধ্যেই সেনাবাহিনী ও পুলিশের সাথে ছাত্রদের সংঘর্ষ শুরু হলো। শুরু হলো ছাত্রবিক্ষোভ। এই বিক্ষোভ আগের মতো নির্বাচনসহ কিছু দাবী নিয়ে নয়, এখন একটাই দাবী, আইয়ুবের পতন।

৭ নভেম্বর রাওয়ালপিন্ডিতে সরকার বিরোধী ছাতদের আন্দোলনে পুলিশ গুলি করে তিনজন ছাত্রকে হত্যা করে। এই হত্যা ছাত্রদের সাথে সকল মানুষকে আন্দোলনে নামিয়ে দেয়। সবাই মিলে সরকারকে অসহযোগিতা করতে থাকে। তারা রেল ও বাসের ভাড়া দেয়া বন্ধ করে দেয়। প্রত্যেক নাগরিক আইয়ুব শাসনের বিরুদ্ধে চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়ায়। এর পেছনে সবচেয়ে বড় ভূমিকা রেখেছে ভূট্টোর জ্বালাময়ী ভাষণগুলো। 

রাওয়ালপিন্ডি হত্যাকান্ডের বিরুদ্ধে ছাত্ররা স্টুডেন্ট একশন কমিটি নামে একটি কমিটি গঠন করে। এটি আইয়ুব বিরোধী আন্দোলনে আরো বড় ভূমিকা রাখে। এই কমিটির প্রধান আহ্বায়ক ছাত্রনেতা শেখ আব্দুল রশিদ। পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে। এটা সরকারের জন্য হিতে বিপরীত হয়। রাওয়ালপিন্ডিতে ছাত্ররা মারাত্মক সহিংস হয়ে উঠে। তারা রাওয়ালপিন্ডিকে পাকিস্তানের অন্যান্য অংশ থেকে আলাদা করে ফেলে। তারা 'হুইল জ্যাম'(চাকা বন্ধ) নামে ধর্মঘট করে।

ঠিক একই সময়ে নভেম্বরের মাঝামাঝিতে ভুট্টো সরকারের এই নাজুক অবস্থার সুবিধা নেয়। সে পাকিস্তানের কৃষক ও শ্রমিকদের মাঠে নামিয়ে দেয়। শ্রমিকরা বিক্ষোভ শুরু করে এবং সকল কারখানা ও উৎপাদন বন্ধ করে দেয়। বিদ্রোহ ক্রমেই শহর থেকে গ্রামে প্রসারিত হতে থাকে। কৃষকেরা স্বৈরাচারি আইয়ুবের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ শুরু করে। এই ঘটনাগুলো দ্রুত হিংস্র হয়ে ওঠে। কৃষকরা তাদের দমনকারীদের উপর হামলা করে, জমির মালিকদের এবং পুলিশ কর্মকর্তাদের হত্যা করে।

বহু স্থানে ছাত্ররা কৃষকদের সহযোগিতায় নায়েব, তহশিলদার, পুলিশ, দারোগা, সার্কেল অফিসারদের বিচার করে গলায় জুতার মালা পরিয়ে ঘুরিয়েছে। ঘুষ হিসেব করে ফেরত নিয়েছে, জরিমানা করেছে, চেয়ারম্যান-মেম্বারদের পদত্যাগ করিয়েছে, বেশ্যাবাড়ি তুলে দিয়েছে, মদ গাঁজার দোকান ভেঙ্গে দিয়েছে, চোর-ডাকাতদের শায়েস্তা করেছে। এ ছাড়া শহরাঞ্চলে ক্ষমতা অপব্যবহারকারী সরকারি কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে বিক্ষোভের প্রকাশ শারীরিক আক্রমণ বা নথিপত্রাদি তছনছ এবং অফিসে অগ্নিসংযোগের মাধ্যমে ঘটেছে। নিম্ন ও মধ্য আয়ের পেশাজীবীরা তাদের দীর্ঘদিনের অপূর্ণ দাবিদাওয়া উত্থাপন করেছেন এবং রাজপথে নেমে মিছিলে উচ্চকিত হয়েছেন, হাজার হাজার শ্রমিক তাদের ন্যূনতম অধিকার আদায় করার লক্ষ্যে ঘেরাও আন্দোলনকে কার্যকর হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করেছেন।

ছাত্র, কৃষক, শ্রমিকদের বিদ্রোহের সাথে সাথে আইয়ুব ডিসেম্বরে নতুন করে বুদ্ধিজীবী ও সাংবাদিকদের বিদ্রোহের মুখোমুখি হয়। পিডিএমের নেতৃত্ব বিক্ষোভ শুরু হলেও বিক্ষোভকারীরা (ছাত্র, কৃষক, শ্রমিক ও বুদ্ধিজীবী) তখনো এক প্লাটফর্মে ছিলো না। তারা প্রত্যেকে আলাদাভাবে নিজেদের কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছিলো। এর মধ্যে ভুট্টো তার যোগ্য নেতৃত্ব দেখাতে সক্ষম হন। তিনি জাতির স্বার্থে সবার হয়ে কথা বলতে সক্ষম হয়েছিলেন। এই কারণে যত দিন যেতে থাকলো ততই ভুট্টো বিদ্রোহের কেন্দ্রবিন্দুতে চলে আসতে লাগলেন। ভূট্টো শুধু জনগণের মধ্যে নয়, সেনাবাহিনী ও আমলাদের মধ্যেও আস্থা অর্জন করতে থাকে। 

এদিকে যখন পশ্চিম পাকিস্তানে আন্দোলন চলছে তখন শেখ মুজিবুর রহমান, নিউক্লিয়াসের কয়েকজন সদস্য এবং ভারতীয় গোয়েন্দারা একত্র হয়েছেন ভারতের আগরতলায়। তাদের উদ্দেশ্য তারা পাকিস্তানকে ভাগ করে ফেলবেন। এখানে তিন গ্রুপের তিন উদ্দেশ্য থাকলেও তিন গ্রুপের প্রাথমিক উদ্দেশ্য ছিল একই। আর সেটা হলো পাকিস্তানের ভাগ। শেখ মুজিবের উদ্দেশ্য বাংলার সর্বময় ক্ষমতা কুক্ষিগত করা। নিউক্লিয়াসের উদ্দেশ্য কম্যুনিজম প্রতিষ্ঠা। ভারতের উদ্দেশ্যে পাকিস্তানের একটি বড় অংশ যেখানে পাকিস্তানের প্রায় ৫৮% জনসংখ্যার বসবাস সেই অংশকে আলাদা নিজেদের অংশ করে নিবে অথবা করদ রাজ্য বানাবে। তবে আগরতলায় মুশরিক ও মুসলিম গাদ্দারদের এই মিটিং সফল হয় নি, তারা ঐক্যমতে পৌঁছাতে পারে নি। উপরন্তু আগরতলায় এই রাষ্ট্রদ্রোহী ষড়যন্ত্রের খবর সরকারি গোয়েন্দাদের কাছে ফাঁস হয়ে যায়।  

মুশরিকদের সাথে মিলে ষড়যন্ত্র করার অপরাধে শেখ মুজিবসহ ৩৫ জন দেশদ্রোহীদের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের মামলা করে সরকার। শেখ মুজিব এই অভিযোগ অস্বীকার করে। জনগণ অবশ্য সরকারের কথা বিশ্বাস করে নি। কারণ স্বৈরাচারকে অবিশ্বাস করাই স্বাভাবিক। পরে ঐ মামলার আসামীদের থেকে জানা গেল শেখ মুজিবুর রহমান মিথ্যা কথা বলেছেন। আগরতলায় মুশরিকদের সাথে করা দেশভাগের ষড়যন্ত্র ঘটনা সঠিক। 

0 comments:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন